কিভাবে ভাইরাস কম্পিউটারে প্রবেশ করে? কিভাবে বুঝবেন আপনি ভাইরাস আক্রান্ত? কিভাবে ভাইরাস আক্রমণ থেকে বাঁচবেন?

ফ্রি সফটওয়্যার ডাউনলোড করার আগে ভালো করে যাচাই করবেন এটি অফিসিয়াল ওয়েবসাইট কিনা। আনঅফিসিয়াল সাইট থেকে ভাইরাসযুক্ত ফাইল ডাউনলোড থেকে বিরত থাকবেন।
Please wait 0 seconds...
Scroll Down and click on Go to Link for destination
Congrats! Link is Generated

এর আগে আমরা ভাইরাস কি, কেন তৈরি করা হয় ও বিভিন্ন ধরনের ভাইরাস সম্পর্কে জেনেছি, এই পর্বে

আমরা জানব কম্পিউটারে ভাইরাস কিভাবে ঢুকে? কিভাবে বুঝবেন আপনার কম্পিউটার ভাইরাস আক্রমণের শিকার হয়েছে এবং কিভাবে কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশ থেকে বিরত রাখবেন সে সম্পর্কে জানব।

যেভাবে কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশ করে -

ছোট ছোট কিছু অসতর্কতার কারনে আপনার কম্পিউটার বা সিস্টেমে ভাইরাস ঢুকে যেতে পারে। এগুলো হলো –

১. ইন্টারনেটের মাধ্যমে 

কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় অনলাইন অনেক সংক্রমিত  ওয়েবসাইট ও  বিভিন্ন অনিরাপদ ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করলে বা সফটওয়্যার বা ব্রাউজারের ক্র্যাক ফাইল ও এক্সটেনশন ডাউনলোড করলে  আপনার কম্পিউটারে ভাইরাস ঢুকতে পারে। প্রায় ৭০% মানুষের কম্পিউটারে অ্যাডওয়্যার এবং মেলওয়্যার, স্পাইওয়্যার ভাইরাস ইন্টারনেট থেকেই কম্পিউটারে প্রবেশ করে।

২. ইউ এস বি (USB) বা সিডি বা মেমরি কার্ড থেকে 

 বিভিন্ন সময়ে আমরা প্রয়োজনে অনেক রকমের ইউএসবি ডিভাইস যেমন, পেন্ড্রাইভ, অন্য মোবাইল থেকে মেমরি কার্ড, পোর্টেবল হার্ড ডিস্ক থেকে অনেক রকমের ফাইল নিজের কম্পিউটারে কপি করে রাখি। আর এই ফাইল গুলো নেয়ার সময় আমাদের কম্পিউটারে অন্যদের কম্পিউটার থেকে ভাইরাস  ঢুকে যায় এবং তা আমরা বুঝতেও পারিনা।

যেভাবে কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশ করে

৩. ইমেইল এটাচমেন্ট থেকে 

কাজের প্রয়োজনে আমরা আমাদের মেইল আইডি থেকে প্রতিদিন অনেক রকমের ইমেইল আদান প্রদান করি এবং এই  ইমেইল গুলোতে ফাইল এটাচমেন্ট থাকে যার মাধ্যমে কম্পিউটারে ভাইরাস ঢুকতে পারে।

কিভাবে বুঝবেন আপনার কম্পিউটারে ভাইরাস আক্রমণ হয়েছে ?

অনেক সময়  কম্পিউটারে ভাইরাস থাকে কিন্তু তার কোনো লক্ষণ দেখা দেয়না। আলাদা আলাদা ভাইরাসের লক্ষন আলাদা আলাদা।

কম্পিউটার যখন নিজে নিজেই বিজ্ঞাপন দেখাবে এবং ব্রাউকারে পপ-আপ পেজ খুলছে, নিজে নিজে অন্য ওয়েবপেজ বা ওয়েবসাইট খুলে যাচ্ছে, তাহলে বুঝবেন আপনার কম্পিউটারে “এডওয়্যার ভাইরাস"  রয়েছে।

আবার অনেক সময়, আপনি যে ফাইল আগে ওপেন করেছিলেন কিন্তু আবার ওপেন করতে গিয়ে দেখেন ফাইল ওপেন হচ্ছে না, করাপটেড দেখাচ্ছে, তাহলে বুঝবেন আপনার কম্পিউটারে ভাইরাস আছে। এসব ভাইরাস আপনার কম্পিউটারের ভেতরে চুপ করে বসে থাকে এবং আস্তে আস্তে সিস্টেম বা প্রোগ্রাম ফাইল গুলি এডিট করে তাতে ভাইরাসের নিজের কোড বসিয়ে দেয়। যেমন- সেল্ফ রেফ্লিকেটিং ভাইরাস।

এছাড়াও  কিছু সাধারণ অসুবিধা যেমন বারবার কম্পিউটার নিজেই রিস্টার্ট হওয়া, অত্যাধিক হ্যাং হওয়া, বারবার এরর মেসেজ আসা ইত্যাদি ভাইরাস আক্রমনের লক্ষন।

এর বাইরেও,

১. ইন্টারনেট স্লো চলা।

২. কম্পিউটার ঠিকভাবে ভাবে কাজ না করা।

৩. কম্পিউটার স্লো হয়ে যাওয়া

৪. হ্যাং হয়ে যাওয়া। হঠাৎ ফ্রিজ এন্ড ক্র্যাশ হওয়া.

৫. নিজে নিজে সফটওয়্যার চালু বা বন্ধ হয়ে যাওয়া।

৬.  সিস্টেম এরর দেখানো।

৭. হার্ডওয়্যার বা সফটওয়্যার প্রব্লেম পাওয়া।

যদি দেখেন এই ধরণের অসুবিধা আপনি যদি আপনার কম্পিউটারে পাচ্ছেন, তাহলে এগুলো কম্পিউটারে ভাইরাস আক্রমণের লক্ষণ হতে পারে।

কম্পিউটারকে ভাইরাস আক্রমণ থেকে কিভাবে বাঁচাবেন?

ছোট ছোট অসতর্কতার কারনে কম্পিউটারে ভাইরাস আক্রমণ  করে। ভাইরাসকে কম্পিউটারে ঢুকতে বাধা দেয়ার জন্য ছোট ছোট বেশ কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। আপনি যদি কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার না করেন তাহলে ভাইরাস ঢোকার তেমন সুযোগ পায় না। কিন্তু আপনি যদি কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাহলে আপনার সতর্ক থাকা আবশ্যক।

১. কম্পিউটারকে ভাইরাস মুক্ত রাখার জন্য সবার আগে যেটি দরকার তা হলো এন্টিভাইরাস। আপনাকে একটি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার কম্পিউটারে অবশই ব্যবহার করতে হবে। বাজারে Avast, Kaspersky ইত্যাদি এন্টিভাইরাস আপনি ফ্রীতেই পেয়ে যাবেন। তবে তা ১ মাসের ফ্রি ভার্সন। সুরক্ষিত থাকার জন্য আপনাকে ১ বছরের জন্য এন্টিভাইরাসের সাবস্ক্রিপশন কিনে নিতে হবে। এই সাবস্ক্রিপশন নাম মাত্র মূল্যে পাওয়া যায়। ক্যাস্পার্স্কি এন্টিভাইরাসের ১ বছরের সাবস্ক্রিপশন সাধারণত মাত্র ৬০০-৭০০ টাকায় বিক্রি হয়। এই এন্টিভাইরাস আপনার কম্পিউটারে বাইরের থেকে ভাইরাস ঢুকতে দিবেনা। নিয়মিত স্ক্যান ও চেকাপের মাধ্যমে আপনার কম্পিউটারকে সুরক্ষিত রাখবে।

কম্পিউটারকে ভাইরাস আক্রমণ থেকে কিভাবে বাঁচাবেন?

আর আপনি যদি কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন, তাহলে আপনাকে ইন্টারনেট সিকিউরিটি এন্টিভাইরাস ব্যবহার করতে হবে। সব এন্টিভাইর কোম্পানিরই ইন্টারনেট সিকিউরিটি এন্টিভাইরাস রয়েছে। এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার গুলো আপ টু ডেট রাখতে হবে।

২. যেকোনো ওয়েবসাইট থেকে  ফাইল ডাউনলোড করবেন না। কেবলমাত্র বিশ্বস্ত এবং ভরসাযোগ্য ওয়েবসাইট থেকে ফাইল ডাউনলোড করবেন। বিভিন্ন টরেন্ট, পাইরেট সাইট এবং প্রিমিয়াম জিনিস ফ্রিতে পাওয়া যায় এমন ওয়েবসাইটগুলো থেকে ভাইরাস ঢোকে।

৩. ফ্রি সফটওয়্যার ডাউনলোড করার আগে ভালো করে যাচাই করবেন এটি অফিসিয়াল ওয়েবসাইট কিনা। আনঅফিসিয়াল সাইট থেকে ভাইরাসযুক্ত ফাইল ডাউনলোড থেকে বিরত থাকবেন।

৪. সফটওয়্যার বা গেমের ক্র্যাক ভার্সন ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। এসব ক্র্যাক সফটওয়্যার এর মধ্য দিয়ে স্পাইওয়্যার, র্যানসমওয়্যার, মেলওয়্যার ইত্যাদি ভাইরাস প্রবেশ করে।

৫. ব্রাউজারের নিজস্ব স্টোর ছাড়া অন্য কোথাও থেকে এক্সটেনশন ডাউনলোড করবেন না। এবং ক্র্যাক এক্সটেনশন ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। এগুলো থেকে ব্রাউজার হ্যাক ও এডওয়্যার ভাইরাস ঢোকে।

৬. অন্যদের পেনড্রাইভ, হার্ড ড্রাইভ, সিডি ও যেকোনো ইউএসবি ডিভাইস থেকে ফাইল কপি করার আগে যাচাই করে নিবেন সেই ব্যক্তি কম্পিউটারে এন্টিভাইরাস ব্যবহার করে কিনা এবং নিজের কম্পিউটারে কপি করার আগে এন্টিভাইরাস দিয়ে তা স্ক্যান করে নিবেন। কারন সেখানে ভাইরাস থাকতে পারে।

৭. ইমেইল এটাচমেন্ট রিসিভ হলে জেনে নিন প্রেরক এর কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত কিনা এবং এটাচমেন্ট ডাউনলোডের পূর্বে তা স্ক্যান করে নিন। অপরিচিত ব্যক্তির ইমেইল ওপেন করবেন না। স্প্যাম ইমেইল থেকে ভাইরাসের আক্রমণ হয়।

৮. নিয়মিত কম্পিউটার এন্টিভাইরাস দিয়ে স্ক্যান করান।

৯. উইন্ডোজ আপডেটেড রাখুন

১০. উইন্ডোজ ডিফেন্ডার নিয়মিত আপগ্রেড করুন।

১১. অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যার আনইন্সটল করে দিন

১২. নিয়মিত জাংক ফাইল ক্লিন করুন

১৩. অপ্রয়োজনীয় ফাইল ডিলিট করে দিয়ে কম্পিউটার যথাসম্ভব পরিপাটি রাখুন

এই ছোট ছোট বিষয়গুলো খেয়াল রাখলে আপনার কম্পিউটারে ভাইরাস ঢুকতে পারবে না।


পরবর্তী পর্বে আমরা জানব, কম্পিউটারে ভাইরাস আক্রমণ করলে কি করবেন সে সম্পর্কে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
It seems there is something wrong with your internet connection. Please connect to the internet and start browsing again.
AdBlock Detected!
We have detected that you are using adblocking plugin in your browser.
The revenue we earn by the advertisements is used to manage this website, we request you to whitelist our website in your adblocking plugin.
Site is Blocked
Sorry! This site is not available in your country.