মিম (meme) কি? শুধুই হাস্যরস নাকি হাতিয়ার?

প্রচলিত সংজ্ঞা অনুযায়ী, মিম (meme) হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া কোনো হাস্যরসাত্মক ছবি বা ভিডিও যেগুলো তৈরি করা হয় বিনোদনের জন্য
Please wait 0 seconds...
Scroll Down and click on Go to Link for destination
Congrats! Link is Generated

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করেন অথচ  'মিম' বা 'ট্রল' দেখেননি বা চেনেন না এমম লোক খুঁজে পাওয়া যাবে না। Meme শব্দটি মেমে, মিমি ইত্যাদি উচ্চারনে অনেকে ব্যবহার করলেও এর শুদ্ধ উচ্চারন 'মিম'।

মিম (meme) কি?

মিম এর বিষয় বস্তু মূলত হাস্যরসাত্মক এবং মিম দেখে এক চোট হাসেন নি এরকম গম্ভীর মানুষ আছে বলে মনে হয় না। প্রচলিত সংজ্ঞা অনুযায়ী, মিম (meme) হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া কোনো হাস্যরসাত্মক ছবি বা ভিডিও যেগুলো তৈরি করা হয় ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য বা 'ভাইরাল' (viral) করার উদ্দেশ্যে মূলত বিনোদনের জন্য। 

মিম (meme) কি?

সাধারণত কোন চলচ্চিত্র বা কোন ঘটনার দৃশ্য থেকে একটি স্থির চিত্র বা ছোট্ট একটু ভিডিও অংশ নিয়ে মিম তৈরি করা হয়। জনপ্রিয় চলচ্চিত্র নায়ক শাকিব খানের একটি কান্নার দৃশ্য কিংবা খেলার মাঠে প্রিয় দলের খেলা দেখার সময় একজন টাক মাথাবিশিষ্ট দর্শক হতাশ হয়ে কোমরে দুই হাত দিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন – এই মিমগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে ভাইরাল হয়েছে এবং জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এবং ইন্টারনেট দুনিয়ায় প্রায় প্রতিদিন ই নতুন নতুন মিমের আবির্ভাব হয়। এই মিমগুলো প্রচার করার উদ্দেশ্য মূলত বিনোদনমূলক। কিন্তু সকল ক্ষেত্রে মিম প্রচার করার উদ্দেশ্য এতটা সরল হয় না। মিমের মাধ্যমে হিংসা,  কুৎসা, বুলি করা এসবের ঘটনাও ঘটছে প্রতিনিয়ত। 

মিডিয়া ইন্টেলিজেন্স ফার্ম 'জিগনাল ল্যাবস'–এর করা একটি গবেষণা থেকে পাওয়া যায়, করোনা মোকাবেলার জন্য উদ্ভাবিত কোভিড–১৯ এর টিকা সম্পর্কে ভুয়া তথ্য ছড়িয়ে দেয়ার ক্ষেত্রে মিম অনেক বড় ভূমিকা পালন করেছে। যেমন: ২০২০ সালের ডিসেম্বরে মাসে কোভিড–১৯ বিষয়ক একটি মিম ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে যেখানে দাবি করা হয় যে কোভিড–১৯ টিকার সাথে পঞ্চম প্রজন্মের প্রযুক্তির (5G technology') একটি চিপ গ্রহীতার শরীরের ঢুকিয়ে দেয়া হবে যা দিয়ে গ্রহীতার উপর নজরদারি করা হবে। আর মিমটিতে গিটারে ব্যবহৃত একটি বৈদ্যুতিক সার্কিটের ডায়াগ্রাম কে '5G' চিপের ডায়াগ্রাম হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। আর মুহূর্তের মধ্যে এই 'ষড়যন্ত্র তত্ত্ব'টি  দাবানলের মত ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে এবং হাজার হাজার মানুষ তা সত্যি ভেবে নেয়।

মিম-এর বৈশিষ্ট্য 

মিমের কয়েকটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য রয়েছে যেমন সামান্য ফটো এডিটিং আর সেন্স অফ হিউমার ভালো হলে যে কেউই সহজেই মিম বানিয়ে ফেলতে পারেন। আর সব ফোন বা কম্পিউটার এ ফটো এডিটিং সফটওয়্যারগুলো সহজলভ্য হওয়ায় মিম বর্তমানে সর্বব্যাপী হয়ে পড়েছে এবং খুব দ্রুতই ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। মিম এর সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো এগুলো অতি দ্রুত ইন্টারনেট জগতে ছড়িয়ে পড়ে এবং বিপুল পরিমান মানুষ এ ধরনের মিম দেখে ও শেয়ার করে। আর একবার ভাইরাল হওয়া কোন মিম কে প্রথম ছড়িয়েছে, সেটি খুঁজে বের করা খুবই কঠিন কাজ, অসম্ভব ই বলা চলে। 

মিম-এর বৈশিষ্ট্য

আর কোনো কারনে কেউ যদি চায়, ভুয়া বা মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে দিতে পারে খুব সহজেই মিম ব্যবহার করে। সহজ বললে বর্তমান বিশ্বে মিমকে খুব সহজেই একধরনের হাতিয়ারে পরিণত করা সম্ভব যা বর্তমানে অহরহই ঘটছে। এইতো মাত্র কিছুদিন আগেও 'ডিপ ফেইক' (deepfake) প্রুযুক্তিকে ইন্টারনেট জগতের সত্যের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি বলে মনে করা হতো। কিন্তু বর্তমানে ইন্টারনেট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সত্যের সবচেয়ে বড় শত্রু হয়ে দাঁড়িয়েছে এই মিম। কেননা, ডিপ ফেইক প্রযুক্তি অনেক ব্যয়বহুল এবং উন্নত প্রযুক্তি প্রয়োজন হয়, কোথা থেকে এসেছে তা শনাক্ত করা সম্ভব। কিন্ত মিম যে কেউই তৈরি করতে পারে এবং খুব সহজেই ভাইরাল হয়ে যায় এবং একবার ভাইরাল হয়ে গেলে এর উৎস বের করা এক প্রকার অসম্ভব। 

মিম যখন স্বার্থহাসিলের হাতিয়ার

এসব কারনে পরিস্থিতিতে জনসাধারণের ভয় বা পক্ষপাতিত্বকে ব্যবহার করে নিজেদের রাজনৈতিক বা অন্য কোনো ধরনের উদ্দেশ্য হাসিল করার জন্য অনেক দুষ্ট লোক বিভ্রান্তিকর তথ্য সংবলিত মিম ইন্টারনেট জগতে ছড়িয়ে দিচ্ছে। সম্প্রতি একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে, মিমের মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কোভিড–১৯ টিকা সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য প্রচারণার কারণে টিকা গ্রহণে আগ্রহীদের সংখ্যা কমপক্ষে ৬% হ্রাস পেয়েছে যা আদতে ছোট সংখ্যা হলেও বাস্তবে সংখ্যাটি বিশাল। 

মিম (meme) কি? শুধুই হাস্যরস নাকি হাতিয়ার?

শুধু কোভিড–১৯ টিকার ক্ষেত্রেই নয়, রাজনৈতিক ক্ষেত্রেও মিমের প্রভাব অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। ২০০৭ সালে মার্কিন রাষ্ট্রপতি প্রার্থী জন ম্যাককেইনকে নিয়ে একটি মিম ছড়িয়ে পড়ে। তিনি ছিলেন কট্টর ইরানবিরোধী ও যুদ্ধবাজ রাজনীতিবিদ এবং তিনি 'বিচ বয়েজ' ব্যান্ডের জনপ্রিয় গান 'বার্বারা অ্যান'–এর সুরে 'বম্ব বম্ব বম্ব, বম্ব বম্ব ইরান' এই লাইনটি গেয়েছিলেন। আর তার এই কাণ্ড নিয়ে তৈরি একটি মিম ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়েএবং ম্যাককেইন সম্পর্কে মানুষের কাছে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। ফলে ম্যাককেইনের নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বী বারাক ওবামা রাজনৈতিকভাবে লাভবান হন এবং সহজেই নির্বাচিত হন প্রেসিডেন্ট হিসেবে। 

এমনকি, মার্কিন নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের মতে, ২০১৬ সালে মার্কিন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের সময়  রিপাবলিকান দলীয় প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিজয়ে ভূমিকা রেখেছে রুশদের চালানো 'মিম যুদ্ধ' যা মার্কিন জনমতকে উল্লেখযোগ্য হারে প্রভাবিত করেছে। অর্থাৎ, বর্তমানে আন্তর্জাতিক রাজনীতিতেও মিম এবং মিমের মাধ্যমে ছড়ানো ভুয়া তথ্য  হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

মিম যখন ভুয়া তথ্যের উৎস

আশঙ্কার বিষয় হচ্ছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিমের মাধ্যমে ভুয়া তথ্যের অবাধ বিস্তার রোধ করা খুবই কঠিন। এমনকি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর মাধ্যমে কোনো বাক্য বা ছবি আলাদাভাবে ব্যবহার করে যদি ভুয়া তথ্য প্রচার করা হলে সেগুলোকে শনাক্ত করা সহজ হলে মিমে সাধারণত কোনো ছবি বা ভিডিওর উপরে কোনো বাক্য সংযোজন করে দেয়ার ফলে এর মধ্য থেকে ঠিক–ভুল বের করা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার জন্য খুবই কঠিন। আর একেকটি  মিম তৈরির ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রেক্ষাপট কাজ করে যার ফলে এআইয়ের পক্ষে সেগুলো বোঝা সম্ভব নয়।

ভুয়া তথ্য রোধের জন্য ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ঘৃণাসূচক মিম চিহ্নিত করার জন্য 'Hateful Memes Challenge' নামক একটি কর্মসূচি আয়োজন করেছে। একইভাবে টুইটারও ভুয়া তথ্য চিহ্নিত করার উদ্দেশ্যে 'বার্ডওয়াচ' নামে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে যার লক্ষ্য হচ্ছে, কোনো টুইটে যদি ভুল বা ভুয়া তথ্য থাকে তবে সেটিকে চিহ্নিত করে সেখানে সঠিক তথ্যসহ একটি নোট সংযুক্ত করে দেওয়া। 

বর্তমানে প্রতিদিন কোটি কোটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারী বিভিন্ন ধরনের মিম দেখছেন এবং শেয়ার করছেন। কোনো মিম শেয়ার করার সময় যফি আমরা সেই মিমে যদি কোনো তথ্য থাকে, সেটির সত্যি মিথ্যা যাচাই করে যদি শেয়ার করি তাহলে বিভ্রান্তিকর তথ্য কম ছড়ানো সম্ভব হবে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Oops!
It seems there is something wrong with your internet connection. Please connect to the internet and start browsing again.
AdBlock Detected!
We have detected that you are using adblocking plugin in your browser.
The revenue we earn by the advertisements is used to manage this website, we request you to whitelist our website in your adblocking plugin.
Site is Blocked
Sorry! This site is not available in your country.